পল্লী সঞ্চয় ব্যাংক লোন | Palli sanchay Bank Loan

Advertisements

আমাদের মধ্যে যে বা যারা পল্লী সঞ্চয় ব্যাংকের গ্রাহক রয়েছে,ন তাদের কাছে পল্লী সঞ্চয় ব্যাংক লোন কিংবা Palli sanchay Bank Loan সম্পর্কে জানা আবশ্যক।

অর্থাৎ আপনি যদি পল্লী সঞ্চয় ব্যাংক থেকে লোন নিতে চান, তাহলে সেই লোন কতগুলো খাতের জন্য প্রযোজ্য হবে কিংবা কোন কোন খাতের জন্য আপনি লোন নিতে পারবেন সে সম্পর্কে জানা প্রয়োজন।

আজকের এই আর্টিকেলের মূলত আলোচনা করা হবে পল্লী সঞ্চয় ব্যাংক লোন প্রকল্প সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য। আশা করি এ সম্পর্কে জানার পরে লোন সম্পর্কে আর কোন রকমের প্রশ্ন থাকবে না।

Palli sanchay Bank Loan এর প্রকারভেদ

আপনি চাইলে ভিন্ন ভিন্ন কয়েকটি খাতের জন্য পল্লী সঞ্চয় ব্যাংক থেকে লোন নিতে পারবেন। পল্লী সঞ্চয় ব্যাংক লোনের যে সমস্ত হয়েছে সেগুলো সম্পর্কে মেনশন করা হলো।

  • উদ্যোক্তা ঋণ।
  • মধ্যম উদ্যোক্তা ঋণ।
  • বিশেষ উদ্যোক্তা ঋণ।

আপনি উপরে উল্লেখিত তিনটি প্রকারভেদ এর মধ্যে এই ব্যাংক থেকে লোন সেবা নিতে পারবেন।

তাহলে এবার দেখে নিন এই সমস্ত খাতের জন্য লোন নিতে হলে কি রকমের রিকোয়ারমেন্ট এবং অন্যান্য বিষয়াদি প্রয়োজন হবে এবং আপনি চাইলে সর্বোচ্চ কত টাকা লোন নিতে পারবেন এই সম্পর্কে বিস্তারিত জেনে নিন।

পল্লীসঞ্চয় উদ্যোক্তা লোন

পল্লী সঞ্চয় ব্যাংকের রয়েছে উদ্যোক্তা লোন সেবা রয়েছে সে সেবার মাধ্যমে যেকোনো উদ্যোক্তা স্বাবলম্বী হতে পারবেন।

এই লোন সেবা নিয়ার মাধ্যমে আপনি চাইলে কৃষি ক্ষেত্রে বিভিন্ন কাজ যেমন মৎস্যচাষ, হাঁস-মুরগী, পালন গবাদি পশু পালন, নার্সারি, মৎস্য হ্যাচারি, জৈবসার উৎপাদন, মাশরুম চাষ, বৃক্ষরোপণ ইত্যাদি ক্ষেত্রে ব্যবহার করতে পারবেন।

লোন নেয়ার যোগ্যতা

  • যে ব্যক্তি লোন নিয়ে বেশি ব্যক্তিকে অবশ্যই বাংলাদেশী নাগরিক হতে হবে।
  • ব্যাংক কর্তৃক নিবন্ধিত সমিতি এবং সমিতির কোন সদস্য হতে হবে।
  • সরকারের সামাজিক নিরাপত্তা বেষ্টনীর আওতা মুক্ত কোন ব্যক্তি হতে হবে কিংবা শিক্ষার্থীরা এবং শিক্ষা উপবৃত্তি গ্রহণকারী কোন ছাত্র-ছাত্রী হতে পারবেন।
  • সমিতির সদস্যের ক্ষেত্রে বয়স ১৮ থেকে সর্বোচ্চ ৫৫ বছরের মধ্যে হতে হবে।
  • যে কোন প্রতিষ্ঠান পরিচালনার ক্ষেত্রে কোন রকমে দিন খেলাপি থাকলে চলবে না।

লোন নেয়ার ফিচারস

  • উদ্যোক্তা ঋণ নেয়ার ক্ষেত্রে আপনি সর্বোচ্চ ৫০ হাজার টাকা নিতে পারবেন।
  • প্রথম দফায় সর্বোচ্চ ১০ হাজার টাকা পর্যন্ত ঋণ বিতরণ করা হবে।
  • তবে বিতরনের পূর্বে তার বিনিয়োগের ক্ষেত্র বিশেষ বিবেচনায় রাখতে হবে।
  • ঋণ এর ব্যবহার এবং ঋণ পরিশোধের রেকর্ড উত্তম হলে প্রতি দফায় সর্বোচ্চ ১০ হাজার টাকা ঋণ বৃদ্ধি করা যাবে, তবে সেটা ঋন ব্যবহারের সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ হতে হবে।
  • যেসব সদস্য পূর্বে ঋণ যথাসময়ে পরিশোধ করেছেন, এবং বর্তমানে বিদ্যমান ঋণ পরিশোধের নিয়মিত আছেন সেই ক্ষেত্রে এটা শিথিল করে ২০ হাজার টাকা করা যেতে পারে।

ঋণ গ্রহনের ডকুমেন্টস

  • ঋণ গ্রহীতার কর্তৃক স্বাক্ষরিত ডিপি নোট।
  • সমিতির সভাপতি ও ম্যানেজার এর সুপারিশ। জামিনদারের স্বাক্ষর।
  • মাঠ সহকারি সুপারিশ।
  • ঋণ বিতরণের সময় ৮% হারে সার্ভিস চার্জ নির্ধারণ করা হবে।

পল্লীসঞ্চয় মাধ্যম উদ্যোক্তা লোন

এছাড়াও আরও বিভিন্ন কাজ সম্পাদনের ক্ষেত্রে আপনি চাইলে পল্লী সঞ্চয় ব্যাংক থেকে মাধ্যম উদ্যোক্তা ঋণ সেবা উপভোগ করতে পারবেন।

এই ঋণের ফিচারস

  • পল্লী সঞ্চয় ব্যাংকের যে কোন গ্রাহক চাইলে সর্বনিম্ন ৫০,০০১ টাকা থেকে সর্বোচ্চ ৩ লক্ষ টাকা লোন নিতে পারবেন।
  • লোন নেয়ার পরে যে প্রকল্প জন্য আপনি লোন নিবেন সেই প্রকল্পের ন্যূনতম বয়স হতে হবে ৫ বছর।
  • এবং বিগত সময়ে কমপক্ষে চার বার ঋণ গ্রহণ করে প্রতিবার যে পরিচালনা করেছেন এ ব্যাপারে তথ্য দিতে হবে।

ঋণের গ্রহণের চার্জ এবং ডকুমেন্ট

  • ঋণগ্রহীতা কর্তৃক স্বাক্ষরিত ডিপি নোট।
  • প্রকল্প প্রতিষ্ঠানের সকল অস্থাবর সম্পত্তি ও মালামাল ব্যাংকের নিকট হাইপোথিকেশন রাখার জন্য ঋণ গ্রহীতা কর্তৃক স্বাক্ষরিত হাইপোথিকেশন।
  • একজন উপযুক্ত গ্যারান্টার।
  • সমিতির সভাপতি ও সহকারি সুপারভাইজার এর মন্তব্য।
  • ঋণ বিতরণের সময় ৮ % হারে সার্ভিস চার্জ নির্ধারণ করা হবে।

পল্লী সঞ্চয় বিশেষ উদ্যোক্তা লোন

এছাড়াও আপনি চাইলে পল্লী সঞ্চয় ব্যাংকে যে বিশেষ উদ্যোক্তা ঋণ রয়েছে সেই বিশেষ উদ্যোক্তা ঋণ সেবা উপভোগ করতে পারবেন।

বিশেষ উদ্যোক্তা লোন সেবা উপভোগ করার জন্য যেরকম ডকুমেন্ট এবং অন্যান্য বিষয়াদি প্রয়োজন হয়েছে সেগুলো সম্পর্কে নিচে আলোচনা করা হলো।

লোন নেয়ার ফিচারস

  • ব্যাংক গ্রাহক চাইলে সর্বনিম্ন ৩.১ লক্ষ টাকা থেকে সর্বোচ্চ ১০ লক্ষ টাকা লোন নিতে পারবেন।
  • একটি অনিয়ম মুক্ত নিয়মিত সমিতির সদস্য হতে হবে।

ঋণ নেয়ার কাজ এবং ডকুমেন্ট

  • ঋণগ্রহীতা কর্তৃক স্বাক্ষরিত ডিপি নোট।
  • প্রকল্প প্রতিষ্ঠানের সকল অস্থাবর সম্পত্তি ও মালামাল ব্যাংকের নিকট হাইপোথিকেশন রাখার জন্য ঋণ গ্রহীতা কর্তৃক স্বাক্ষরিত হাইপোথিকেশন।
  • ঋণগ্রহীতার গ্যারান্টারের সম্পত্তির দলিল দস্তাবেজ ব্যাংকে জমা রাখতে হবে।
  • সম্পত্তির দলিল দস্তাবেজ ব্যাংকে জমা রাখার স্বাক্ষরলিপি দিতে করতে হবে।
  • সভায় সিদ্ধান্ত সমিতির সভাপতি ম্যানেজার এবং সংশ্লিষ্ট ফিল্ড সুপারভাইজার এর সুপারিশ প্রয়োজন হবে।

আর এটি হলো মূলত পল্লী সঞ্চয় ব্যাংকের যে সমস্ত আইনসভা রয়েছে সে সমস্ত ঋণ সেবা সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য।

এছাড়াও এই ঋণ সেবা সম্পর্কে আরও বিস্তারিত জেনে নেয়ার জন্য নিম্নলিখিত লিংক থেকে পিডিএফ ফরমেট ফাইলটি ডাউনলোড করে নিন।

Download

উল্লেখিত লিংক থেকে পিডিএফ ফাইলটি ডাউনলোড করে নেয়া হয়ে গেলে, এই ঋণ সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য জেনে নিতে পারবেন।

Also Read:

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

close
Scroll to Top