ন্যাশনাল ব্যাংক ডিপোজিট স্কিম সম্পর্কে জেনে নিন

আপনি যদি ব্যাংকের ডিপোজিট করতে চান, তাহলে ন্যাশনাল ব্যাংকে ডিপোজিট করার জন্য ন্যাশনাল ব্যাংক ডিপোজিট স্কিম সম্পর্কে জেনে নেয়ার প্রয়োজন রয়েছে।

ন্যাশনাল ব্যাংকে আপনি যদি একটি নির্দিষ্ট পরিমান টাকা ডিপোজিট করেন, তাহলে সেই ইনভেস্টমেন্ট থেকে আপনি কি রকমের সুযোগ সুবিধা উপভোগ করতে পারবেন? সেই সম্পর্কে এই আর্টিকেল থেকে জেনে নিতে পারবেন।

ন্যাশনাল ব্যাংক ডিপোজিট এর বৈশিষ্ট্যসমূহ

আপনি যদি এই ব্যাংকে ডিপোজিট করতে চান, তাহলে ডিপোজিট করার ক্ষেত্রে আপনি যে সমস্ত সুযোগ সুবিধা উপভোগ করতে পারবেন এবং এই ডিপোজিট স্কিম এর যে সমস্ত বৈশিষ্ট্য রয়েছে, সেগুলো নিচে উল্লেখ করা হলো।

  • এই ব্যাংকে আপনি চাইলে ৩ বছর, ৫ বছর, ৮ বছর ও ১০ বছর মেয়াদী ডিপোজিট অ্যাকাউন্ট তৈরি করতে পারবেন।
  • সর্বনিম্ন ৫০০ টাকা থেকে শুরু করে সর্বোচ্চ ৫০ হাজার টাকা জমা রাখতে পারবেন।
  • যৌথ নামে ডিপোজিট অ্যাকাউন্ট তৈরি করতে পারবেন।
  • আপনি কত টাকা সঞ্চয় করবেন, তার ৮০% ঋণ সুবিধা উপভোগ করতে পারবেন।
  • একজন ব্যক্তি চাইলে একাধিক একাউন্ট তৈরি করতে পারবেন।
  • যাদের বয়স ১৮ বছর কিংবা তার অধিক, সে সমস্ত ব্যক্তিবর্গ এই ডিপোজিট একাউন্ট তৈরি করতে পারবেন।
  • এছাড়াও এই অ্যাকাউন্ট তৈরি করার মাধ্যমে আপনি আকর্ষণীয় মুনাফা উপভোগ করতে পারবেন।

একাউন্ট খুলতে প্রয়োজনীয় কাগজপত্র

আপনি যদি ডিপিএস অ্যাকাউন্ট তৈরি করতে চান, তাহলে এই ডিপিএস অ্যাকাউন্ট তৈরি করার ক্ষেত্রে যে সমস্ত কাগজপত্র আপনাকে তাদের কাছে দিতে হবে, সেগুলো সম্পর্কে নিচে আলোকপাত করা হলো।

  • যে ব্যক্তি অ্যাকাউন্ট তৈরি করবে সেই ব্যক্তি দুই কপি পাসপোর্ট সাইজের ছবি।
  • নমিনি হিসেবে বাছাইকৃত ব্যক্তির ১ কপি পাসপোর্ট সাইজের ছবি।
  • একাউন্ট যে ব্যক্তি তৈরি করবে, সেই ব্যক্তির জাতীয় পরিচয় পত্র ড্রাইভিং লাইসেন্স পাসপোর্ট এগুলোর মধ্যে থেকে যে কোন একটি সনদ দিতে হবে।
  • একই রকমভাবে নমিনি হিসেবে বাছাইকৃত ব্যক্তির, জাতীয় পরিচয় পত্র ড্রাইভিং লাইসেন্স পাসপোর্ট এর মধ্য থেকে যে কোন একটি পরিচয় পত্র দিতে হবে।
  • এই ব্যাংকে যদি আপনার কোন একটি অ্যাকাউন্ট থেকে থাকে, তাহলে সেই অ্যাকাউন্ট নাম্বার মেনশন করতে হবে।

উপরে উল্লেখিত, কাগজপত্র যদি আপনার কাছে থেকে থাকে এবং যদি একমত পোষণ করেন, তাহলে আপনি এই ব্যাংকে একটি ডিপিএস অ্যাকাউন্ট তৈরি করতে পারেন।

ন্যাশনাল ব্যাংক ডিপিএস রেট

এবার তাহলে জেনে নেয়া যাক, বিভিন্ন মেয়াদী একাউন্ট তৈরি করার ক্ষেত্রে কিরকম এর সুযোগ সুবিধা উপভোগ করতে পারবেন সেই সম্পর্কে বিস্তারিত।

৩ বছর, ৫ বছর, ৮ বছর এবং ১০ বছর মেয়াদে মাসিক সঞ্চয় প্রকল্প এর জমা ও মুনাফার হার নিম্নরূপ হবে-
মাসিক সঞ্চয় ৩ বছর ৫ বছর ৮ বছর ১০ বছর
৫০০  ২০,৩২০ ৩৬,৭২০ ৬৬,৫৮০ ৯০,৬৮০
১,০০০ ৪০,৬৪০ ৭৩,৪৪০ ১,৩৩,১৭০ ১,৮১,৩৭০
১,৫০০ ৬০,৯৬০ ১,১০,১৭০ ১,৯৯,৭৫০ ২,৭২,০৫০
২,০০০ ৮১,২৮০ ১,৪৬,৮৯০ ২,৬৬,৩৪০ ৩,৬২,৭৪০
৩,০০০ ১,২১,৯৩০ ২,২০,৩৪০ ৩,৯৯,৫১০ ৫,৪৪,১১০
৫,০০০ ২,০৩,২২০ ৩,৬৭,২৪০ ৬,৬৫,৮৫০ ৯,০৬,৮৫০
১০,০০০ ৪,০৬,৪৪০ ৭,৩৪,৪৯০ ১৩,৩১,৭০০ ১৮ ১৩,৭১০
২০,০০০ ৮,১২,৮৯০ ১৪,৬৮,৯৯০ ২৬,৬৩,৪১০ ৩৬,২৭,৪৩০
৩০,০০০ ১২,১৯,৩৪০ ২২,০৩,৪৯০ ৩৯,৯৫,১১০ ৫৪,৪১,১৫০
৫০,০০০ ২০,৩২,২৪০ ৩৬,৭২,৪৯০ ৬৬,৫৮,৫২০ ৯০,৬৮,৫৮০

 

উপরে যে সমস্ত টাকার অংকের কথা মেনশন করা হয়েছে, এবং যে সমস্ত মেয়াদে প্রদান করা হয়েছে, সেসমস্ত মেয়াদে আপনি যদি টাকা ডিপোজিট করেন, তাহলে এই রকম সুবিধা উপভোগ করতে পারবেন।

ন্যাশনাল ব্যাংক ডিপোজিট রেট সম্পর্কে উপরে আলোচনা করা হল। আশা করি, এই সম্পর্কে আপনি বিস্তারিত জেনে নিতে পেরেছেন।

Leave a Comment

Your email address will not be published.

Scroll to Top