কোন ব্যাংকে ডিপিএস লাভ বেশি ২০২২ | ( বিস্তারিত)

আমাদের মধ্যে এরকম অনেকেই রয়েছেন যারা কিনা এ সম্পর্কে জানতে চান, যে কোন ব্যাংকে ডিপিএস লাভ বেশি হয় বা কোন ব্যাংকে টাকা সঞ্চয় করলে লাভ বেশি হয় এ সম্পর্কে।

আপনি যদি তাদের মধ্যে একজন হয়ে থাকেন, তাহলে আজকের এই আর্টিকেলের মাধ্যমে জেনে নিতে পারবেন কোন ব্যাংকে ডিপিএস লাভ বেশি হয় কিংবা কোন ব্যাংকে টাকা রাখলে বেশি লাভ হবে সে সম্পর্কে বিস্তারিত।

এই আর্টিকেলে বাংলাদেশের কয়েকটি লিডিং বা সর্বাধিক একটিভ ইউসার যুক্ত ব্যাংক এর লিস্ট তুলে ধরা হবে এবং সমস্ত ব্যাংকের ডিপিএস সিস্টেম এ লাভ এর সমীকরণ তুলে ধরা হবে।

যার ফলে আপনি খুব সহজেই বুঝে নিতে পারবেন, যে এই সমস্ত ব্যাংক থেকে কোন কোন ব্যাংকে আপনি যদি টাকা রাখেন ডিপিএস সিস্টেম এ তাহলে আপনার লাভ হওয়ার সম্ভাবনা অধিকহারে থাকবে।

ডাচ-বাংলা ব্যাংক লিমিটেড ডিপিএস

আপনি যদি ডাচ বাংলা ব্যাংকের একজন গ্রাহক হয়ে থাকেন, তাহলে আপনি ডাচ বাংলা ব্যাংকের ডিপিএস সিস্টেম রয়েছে সেই ডিপিএস সিস্টেম এ টাকা জমাতে পারবে।

এবার তাহলে জেনে নেয়া দরকার ডাচ বাংলা ব্যাংকে আপনি যদি ডিপিএস পদ্ধতিতে টাকা জমা রাখেন, তাহলে কি রকমের লাভ হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

  • এখানে ডিপিএস পদ্ধতিতে আপনি যে টাকা জমা রাখবেন সেই টাকা জমা রাখার মেয়াদকাল হবে ৩,৫,৮ কিংবা ১০ বছর।
  • এখানে ৫০০ টাকা গুণিতকে আপনার ইচ্ছামত টাকা জমা রাখতে পারবেন।
  • সুদের হার শতকরা ৭.৫ টাকা।
  • এই ব্যাংক সঞ্চয়ী হিসাবের জন্য সুদ দিবে ৪ টাকা।

ঢাকা ব্যাংক লিমিটেড

বাংলাদেশ অন্যান্য ব্যাংকের মতো আপনি চাইলে ঢাকা ব্যাংক লিমিটেড ডিপিএস সিস্টেমে টাকা জমাতে পারবে।

  • এই ব্যাংকে আপনি ৪ বছর থেকে শুরু করে ১০ বছর মেয়াদে টাকা জমা রাখতে পারবেন।
  • প্রতি কিস্তিতে সর্বনিম্ন ৫০০ টাকা থেকে শুরু করে সর্বোচ্চ ২০,০০০ টাকা অব্দি জমা রাখা সম্ভব।
  • প্রদত্ত সুদের শতকরা হারগুলো: শতকরা ৬, ৭, ৮, ৮.৫, ৮.৭৫, ৯ ও ৯.৫ টাকা।
  • সঞ্চয়ী হিসাবের জন্য সুদের হার ৪ টাকা।

 

সিটি ব্যাংক লিমিটেড

এবার দেখে নেয়া যাক সিটি ব্যাংক লিমিটেড এ আপনি যদি ডিপিএস পদ্ধতিতে টাকা জমানো তাহলে কি রকম লাভ এবং সুবিধা পাবেন।

  • এই ব্যাংকে টাকা জমানোর মেয়াদকাল হলো ৩,৫,৭ এবং ১০ বছর।
  • ব্যাংকে আপনি চাইলে মাসিক কিস্তিতে ৫০০ টাকা থেকে শুরু করে সর্বোচ্চ ২০ হাজার টাকা পর্যন্ত জমাতে পারবেন।
  • ডিপিএস সিটি ব্যাংক আপনাকে সুদের হার শতকরা ৮.৫% এবং সঞ্চয় হিসেবে আপনি শতকরা 4 টাকা সুদ পাবেন।

ন্যাশনাল ব্যাংক লিমিটেড

এছাড়াও আপনি যদি ন্যাশনাল ব্যাংক লিমিটেড ডিপিএস সিস্টেম এ টাকা জমিয়ে থাকেন, তাহলে এই ব্যাংক থেকে ডিপিএস পদ্ধতিতে কি রকমের লাভ হতে পারে সে সম্পর্কে জেনে নিন।

  • সর্বোচ্ছো ৫ ধরনের মাসিক কিস্তিতে ডিপিএস করা যাবে। আপনি চাইলে ৫০০, ১০০০, ২০০০, ৫০০০ এবং ১০ হাজার টাকা জমা রাখতে পারবেন।
  • ডিপিএস সিস্টেম এর মেয়াদকাল হলো ৩,৬, ৮ এবং ১০ বছর।
  • সুদের হার শতকরা ৭.৭৫ থেকে শুরু করে ৯.৫ টাকা পর্যন্ত। এবং এই ব্যাংকে সঞ্চয়ী হিসাবে আপনি শতকরা ৪.৫ টাকা সুদ পাবেন।

আইএফআইসি ব্যাংক লিমিটেড

এবার জেনে নেয়া যাক আইএফআইসি ব্যাংক লিমিটেড ডিপিএস সিস্টেম একই রকমের লাভ উপভোগ করতে পারবেন এজন্য।

  • এই ব্যাংকে আপনি ডিপিএস এর মাসিক কিস্তিতে ৫০০ টাকা থেকে শুরু করে এই গুনিতকে আপনার ইচ্ছামত টাকা জমা রাখতে পারবেন।
  • টাকার উপর ভিত্তি করে সুদের হার শতকরা ৯.৫%।
  • এই ব্যাংকের মেয়াদকাল হলো ৩-৫ বছর। এই ব্যাংকে সঞ্চয় হিসেবে শতকরা সুদের হার ৫ টাকা।

 

শাহজালাল ইসলামী ব্যাংক লিমিটেড

শাহ্জালাল ইসলামী ব্যাংকের ডিপোজিট সিস্টেম গুলোকে লাখপতি ডিপোজিট স্কিম বলে আখ্যায়িত করা হয়।

  • এখানে আপনি ৩,৫, ৮ এবং ১০ বছর মেয়াদে টাকা জমাতে পারবেন।
  • মাসিক কিস্তির হাজার ৪৫০ টাকায় ৬৫০ টাকা ১২৫০ টাকা এবং ২৩৫০ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। এই টাকার অংকের মধ্যে আপনার টাকা সংখ্যা নির্ধারণ করে নিতে পারবেন।
  • এছাড়াও ডিপিএস সিস্টেম এ যে মুনাফা আপনি উপভোগ করতে পারবেন সেই মুনাফার পরিমান ব্যাংক কর্তৃক নির্ধারণ করা হবে।
  • সঞ্চয়ী হিসাবে শতকরা ৪ টাকা করে মুনাফা পাবেন।

ফার্স্ট সিকিউরিটি ইসলামী ব্যাংক লিমিটেড

ফার্স্ট সিকিউরিটি ইসলামী ব্যাংক লিমিটেড এর ডিপিএস সিস্টেম রয়েছে, সেই ডিপিএস সিস্টেম সম্পর্কে বিস্তারিত নিচে আলোচনা করা হলো।

  • এই ব্যাংকে আপনি সর্বনিম্ন ১০০ টাকা থেকে শুরু করে সর্বোচ্চ ৫ হাজার টাকা অব্দি মাসিক কিস্তিতে টাকা জমাতে পারবেন।
  • টাকা জমানোর মেয়াদকাল হলো ৫ বছর এবং 10 বছর।
  • মুনাফার শতকরা হার হলো ৯-১০%। ব্যাংকে সঞ্চয়ী হিসাব রাখে ৭.৭৫ টাকা শতকরা হারে মুনাফা দেবে ফার্স্ট সিকিউরিটি ইসলামী ব্যাংক লিমিটেড।

স্ট্যান্ডার্ড চার্টার্ড ব্যাংক লিমিটেড

বাংলাদেশের যে সমস্ত ব্যাংকের ডিপিএস করার সুযোগ খুবই কম হিসেবে বিবেচনা করা হয়, সেগুলোর মধ্যে থেকে উল্লেখযোগ্য একটি হলো স্ট্যান্ডার্ড চার্টার্ড ব্যাংক লিমিটেড।

  • আপনি সর্বোচ্চ ৩ বছর মেয়াদের জন্য একটি ডিপিএস হিসাব খুলতে পারবেন।
  • প্রাথমিক হিসেবে জমা দিতে হবে ১০,০০০ টাকা এবং মাসিক কিস্তি ১০০০ টাকা।
  • এখানে আরেকটি হিসাব বিদ্যমান রয়েছে আর সেটি হলো, আপনি যদি ৪৬ হাজার টাকা জমা করেন, তাহলে ৫৩ হাজার টাকা ফেরত পাবেন।

পূবালী ব্যাংক লিমিটেড

 

  • এই ব্যাংকের মাসিক কিস্তির হার হল ৫০০ টাকা থেকে শুরু করে সর্বোচ্চ ২,০০০ টাকা।
  • মেয়াদকাল ৩-৫ বছর অবধী।
  • সুদের হার ধরা হয়েছে ৮.২৫% থেকে ৯.৫% পর্যন্ত হতে পারে। এবং সন্ঞয়ী হিসাবে সুদের হার ৪.৫%।

জনতা ব্যাংক লিমিটেড

 

  • এই ব্যাংকে ডিপিএস হিসাব খুলতে পারবেন সর্বনিম্ন ৪ বছর থেকে সর্বোচ্চ ১০ বছর পর্যন্ত।
  • মাসিক কিস্তি ২০০ টাকা থেকে শুরু করে সর্বোচ্চ ৫ হাজার টাকা।
  • শতকরা সুদের হার ৮-৯ টাকা পাওয়া যাবে। সঞ্চয়ী হিসাব খুললে সুদের হার ৬ টাকা।

অগ্রণী ব্যাংক লিমিটেড

 

  • অগ্রণী ব্যাংকের ডিপিএস এর মেয়াদকাল হল ৫ থেকে ১০.বছর।
  • এই ব্যাংকে আপনি সর্বনিম্ন ১ হাজার টাকা থেকে শুরু করে সর্বোচ্চ ১০ হাজার টাকা অবধি কিস্তি রাখতে পারবেন।
  • শতকরা সুদের হার ৭ থেকে ৯ টাকা অবধী ধার্য্য করা হয়েছে এবং সঞ্চয় হিসাব করলে সুদের হার শতকরা ৬ টাকা।

সোনালী ব্যাংক লিমিটেড

 

  • সোনালী ব্যাংকে আপনি ৫ বছর মেয়াদী একটি ডিপিএস অ্যাকাউন্ট তৈরি করতে পারবেন।
  • এই ব্যাংকে মাসিক কিস্তিতে ৫০০ টাকা থেকে শুরু করে সর্বোচ্চ ১০ হাজার টাকা রাখা সম্ভব।
  • সুদের হার শতকরা 8.50 টাকা হারে পাবেন এবং সঞ্চয়ী হিসাব খুললে সুদের হার হবে ৬.৫ টাকা।

ট্রাস্ট ব্যাংক লিমিটেড

 

  • এই ব্যাংকে ডিপিএস সিস্টেম এর মেয়াদ ৩,৫,৭ এবং ১০ বছর।
  • ব্যাংকে আপনি সর্বনিম্ন ৫০০ টাকা থেকে শুরু করে সর্বোচ্চ ৫ হাজার টাকা অব্দি রাখতে পারবেন।
  • সুদ পাবেন শতকরা ৮% এবং সঞ্চয়ী হিসাব খুললে সুদ পাবেন শতকরা ৬ টাকা।

মার্কেন্টাইল ব্যাংক লিমিটেড

  • এই ব্যাংকে ডিপিএস সিস্টেম এর মেয়াদকাল ৩,৫,৭ এবং ১০ বছর।
  • ব্যাংকে আপনি সর্বনিম্ন ২৫০ টাকা থেকে শুরু করে সর্বোচ্চ ৫ হাজার টাকা অব্দি জমা রাখতে পারবেন।
  • শতকরা সুদের হার ৮ টাকা থেকে শুরু করে ৯.২৫ টাকা পর্যন্ত। এই ব্যাংকে সঞ্চয়ী হিসাবে সুদের হার ৪.৫ টাকা।

ইউনাইটেড কমার্শিয়াল ব্যাংক (UCB)

এছাড়াও আমাদের লিস্ট এর সর্বশেষে যে ব্যাংক রয়েছে সেটি হল ইউনাইটেড কমার্শিয়াল ব্যাংক। তাহলে জেনে নিন এই ব্যাংকে ডিপিএস সিস্টেম একই রকমের লাভ উপভোগ করতে পারবেন।

  • এই ব্যাংকে ডিপিএস সিস্টেম এর মেয়াদকাল ৪ থেকে শুরু করে ১০ বছর৷
  • ব্যাংকে আপনি সর্বনিম্ন ৫০০ টাকা থেকে শুরু করে সর্বোচ্চ ২৫ হাজার টাকা অব্দি মাসিক কিস্তিতে টাকা জমাতে পারবেন।
  • সুদের হার শতকরা ৯ টাকা এবং সঞ্চয়ী হিসাব খুললে গ্রাহকদের জন্য শতকরা সুদের হার ৫ টাকা।

কোন ব্যাংকে ডিপিএস এ লাভ বেশি সেই সম্পর্কে আশা করি আপনি নিজে থেকেই এবার মিলিয়ে নিতে পারবেন। এবং যে ব্যাংকে ডিপিএস এ লাভ বেশি সেই ব্যাংকে টাকা জমিয়ে সহজেই কোটিপতি(!) হয়ে যেতে পারবেন।

মূলত, উপরে উল্লেখিত যে সমস্ত ব্যাংকের নাম মেনশন করা হয়েছে এবং ব্যাংকে ডিপোজিট করার সময়সীমা এবং সুদের হার মেনশন করা হয়েছে সেগুলো সম্পর্কে জেনে নিলেই আপনি বুঝতে পারবেন কোন ব্যাংকে ডিপিএস লাভ বেশি।

Leave a Comment