ডাচ বাংলা ব্যাংক শিক্ষাবৃত্তি সম্পর্কে বিস্তারিত

আমাদের মধ্যে অনেকেই রয়েছেন যারা কিনা ডাচ বাংলা ব্যাংক শিক্ষাবৃত্তি সম্পর্কে জেনে নেয়ার আগ্রহ প্রকাশ করে থাকেন।

কারণ, আপনি হয়তো পূর্বে থেকে এ সম্পর্কে অবগত রয়েছেন, ডাচ-বাংলা ব্যাংক শিক্ষাবৃত্তি দিয়ে থাকে। যা বিভিন্ন শিক্ষাবর্ষের ছাত্র ছাত্রীদের জন্য প্রযোজ্য হয়ে থাকে।

সর্বশেষ নির্দেশনা অনুযায়ী ডাচ-বাংলা ব্যাংক কর্তৃক এইচএসসি শিক্ষার্থীদের জন্য দুই বছরের শিক্ষাবৃত্তি দিচ্ছে যার জন্য আপনি আবেদন করতে পারেন।

ডাচ বাংলা ব্যাংক শিক্ষাবৃত্তি আবেদন রিলেটেড বিস্তারিত তথ্য সম্পর্কে জেনে নেয়ার জন্য এই আর্টিকেলটি দেখে নিতে পারেন।

ডাচ বাংলা ব্যাংক শিক্ষাবৃত্তি কারা পাবে?

এই শিক্ষাবৃত্তি সাধারণত এইচএসসি এবং সমমানের শিক্ষার্থীদের জন্য প্রযোজ্য হবে। শিক্ষার্থীরা চাইলে একাদশ এবং দ্বাদশ শ্রেণীতে পড়ার জন্য পরিপূর্ণ খরচ পুষিয়ে নিতে পারবে।

তবে, আপনি যদি শিক্ষাবৃত্তি নিতে চান, তাহলে আপনার সাথে রিকোয়ারমেন্ট গুলো মিলতে হবে। অন্যথায়, আপনি শিক্ষাবৃত্তি পাবেন না।

তাহলে আর দেরি না করে এখনি জেনে নেয়া যাক, কি সেই সমস্ত রিকোয়ারমেন্ট ? যা মিলে গেলেই আপনি শিক্ষাবৃত্তি পেতে পারেন।

শিক্ষা বৃত্তি পাওয়ার যোগ্যতা

আপনি যদি এইচএসসিতে কিংবা সমমানের জন্য শিক্ষা বৃত্তি পেতে চান, তাহলে নিম্নলিখিত যোগ্যতা আপনার মধ্যে থাকতে হবে।

এসএসসি রেজাল্টঃ আপনি যদি গ্রামের হয়ে থাকেন, অর্থাৎ মেট্রোপলিটন এরিয়ার মধ্যে না থাকেন, তাহলে এসএসসি পরীক্ষায় আপনার জিপিএ ৪. ৮৩ হতে হবে।

যে সমস্ত এসএসসি শিক্ষার্থী মেট্রোপলিটন এরিয়ার মধ্যে রয়েছেন, সে সমস্ত শিক্ষার্থীদের এসএসসি পরীক্ষায় জিপিএ ৫.০০ থাকতে হবে।

উপরে উল্লেখিত দুই ধরনের শিক্ষার্থীদের জন্য জিপিএ হিসাব দেয়া রয়েছে, সেই জিপিএ যদি আপনার সাথে মিলে যায়, তাহলে আপনি এই শিক্ষাবৃত্তি নেয়ার জন্য উপযোগী হবেন।

ডাচ বাংলা ব্যাংক শিক্ষাবৃত্তির আবেদন

আপনাকে অবশ্যই অনলাইনের মাধ্যমে আবেদন জমা দিতে হবে এবং অনলাইনের মাধ্যমে পত্রিকায় আপনাকে জানিয়ে দেয়া হবে, যে আপনি আসলে বৃত্তি পেয়েছেন কিনা।

অনলাইনের মাধ্যমে আবেদন জমা দেয়ার জন্য প্রথমত নিম্নলিখিত লিংক ভিজিট করতে হবে।

আবেদন করুন

লিংকে ভিজিট করার পরে সিম্পল কয়েকটি স্টেপ ফলো করার মাধ্যমে আপনি শিক্ষাবৃত্তির জন্য আবেদন করতে পারবেন এবং আপনার আবেদনটি তাদের কাছে জমা দিতে পারবেন।

আবেদনটি তাদের কাছে জমা দেয়ার পূর্বে যে সমস্ত কাগজপত্র প্রয়োজন হবে, সে সমস্ত কাগজ পত্রের কথা নিচের মেনশন করা হলো।

  • পাসপোর্ট সাইজের ছবি (স্ক্যান কপি)।
  • পিতা ও মাতার পাসপোর্ট সাইজের ছবি (স্ক্যান কপি)
  • এসএসসির নম্বরপত্র ও প্রশংসাপত্রের স্ক্যান কপি ।

যদি আবেদন এপ্রুভ হয়ে যায়, তাহলে আপনাকে সেটি জানিয়ে দেয়া হবে।

ডাচ বাংলা ব্যাংক শিক্ষাবৃত্তি টাকার পরিমান

আপনি যদি বৃত্তি পাওয়ার মতো উপযোগী হয়ে যান, অর্থাৎ আপনাকে যদি সিলেক্টেড করা হয়ে যায়। তাহলে নিচে বর্ণিত টাকার অঙ্ক আপনি পেয়ে যাবেন।

যে বা যারা এই শিক্ষা বৃত্তি পাবে, সেই সমস্ত ব্যক্তিবর্গ প্রতি মাসে ২,৫০০ টাকা পাবেন।

উপরে উল্লেখিত টাকার পরিমাণ প্রতিমাসে আপনি পাবেন এবং এরকম করে দুইবছর টাকা দেয়া হবে।

এছাড়াও প্রতিবছর কেনাকাটা এবং প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র কেনার জন্য অতিরিক্ত ৩৫০০ টাকা দেয়া হবে।

তাহলে আর দেরি না করে এখনি উপরে উল্লেখিত উপায় ডাচ-বাংলা ব্যাংকের শিক্ষাবৃত্তি রয়েছে, সে শিক্ষাবৃত্তির আবেদন করেন, এবং এই অফারটির মাধ্যমে আপনার শিক্ষাজীবনে আরো বেশি অগ্রসর হোন।

আপনি যদি শিক্ষা বৃত্তির জন্য আবেদন করে থাকেন, তাহলে আপনার জন্য অসংখ্য শুভকামনা রইল।

Leave a Comment

Your email address will not be published.

Scroll to Top