জনতা ব্যাংক লোন প্রকল্প সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য জানুন |

Advertisements

বাংলাদেশের একটি জনপ্রিয় ব্যাংক হল জনতা ব্যাংক লিমিটেড। জনতা ব্যাংক লিমিটেডের জনতা ব্যাংক লোন নেয়া আরো বেশি লাভজনক।

এখানে লাভজনক বলতে আপনি যখনই কোন লোন প্রকল্প তাদের সাথে সম্পাদন করবেন তখন বিরাট সুযোগ সুবিধার মাধ্যমে লোন নিতে পারবেন।

জনতা ব্যাংক লোন প্রকারভেদ

মূলত আপনি যে জনতা ব্যাংক থেকে লোন নিতে চান, তাহলে ৬টি ভিন্ন সেক্টরের জন্য লোন নিতে পারবেন অর্থাৎ ৬টি ভিন্ন কার্য সম্পাদনের ক্ষেত্রে লোন নিতে পারবেন।

জনতা ব্যাংক লোন নেয়ার যে সমস্ত সেক্টর রয়েছে সেগুলো নিচে মেনশন করা হলো।

  1. পেনশনভোগীদের জন্য বিশেষ ঋণ।
  2. গৃহনির্মাণ লোন প্রকল্প।
  3. পল্লী ঋণ।
  4. সকল পেশাজীবী জন্য জনতা ব্যাংক লোন।
  5. শিক্ষা লোন কর্মসূচি।
  6. গাভী পালন ঋণ কর্মসূচী।

তাহলে আর দেরি না করে এখনি দেখে নিন এই সমস্ত লোন নেয়ার ক্ষেত্রে কি সমস্ত রিকোয়ারমেন্ট এর প্রয়োজন হবে এবং কিভাবে এই সমস্ত লোন নিতে পারবেন।

পেনশনভোগীদের জন্য বিশেষ লোন

আপনি যদি যেকোনো একটি চাকরির মধ্যে রিটায়ার্ড বা অবসরপ্রাপ্ত হয়ে যান কিংবা পেনশনভোগী হয়ে যান; তাহলে জনতা ব্যাংক এই সমস্ত ব্যক্তিবর্গের জন্য পেনশনভোগী বিশেষ ঋণ চালু করেছে।

ঋণ সম্পর্কে তথ্য

  • যে ব্যক্তি এই ঋণ নেবে সেই ব্যক্তিকে অবশ্যই বিভিন্ন সরকারি চাকরি কিংবা অন্য স্বনির্ভর প্রতিষ্ঠান থেকে অবসর নেয়ার দলিল দেখাতে হবে।
  • এই ঋণ নিতে ১০ লক্ষ টাকা অব্দি লোন নেয়া সম্ভব।
  • ৯% সুদ হারে ঋণ পরিশোধ করতে হবে।
  • লোন এর মেয়াদ সর্বোচ্চ পাঁচ বছর। এবং ৬০ কিস্তিতে লোন দিতে হবে।
  • প্রতিমাসে ঋণ পরিশোধ করতে হবে।

ঋণ নেয়ার জামানতঃ

  • মূলত যে ব্যক্তি এই ঋণ নেবে সেই ব্যক্তিতে অবশ্যই তার ব্যাংকের হিসাব জনতা ব্যাংকে বুঝিয়ে দিতে হবে।
  • যথাযথ স্টাম্প এর মাধ্যমে ঋণ দেয়া হবে এবং ব্যক্তির গ্যারান্টি দিতে হবে।
  • ঋণ পরিশোধের নিশ্চয়তা সরুপ যে ব্যক্তি ঋণ নেবে সেই ব্যক্তির স্বামী/স্ত্রী/পিতা/মাতা/সহোদর ভাই/সাবালক সন্তান ইত্যাদি তৃতীয় পক্ষের
  • গ্যারান্টি প্রধান করতে হবে।
  • এই ঋণ প্রকল্প জনতা ব্যাংকের যে কোন শাখা থেকে নেয়া যাবে।

গৃহনির্মাণ লোন প্রকল্প

আপনি যদি জনতা ব্যাংক থেকে লোন নেয়ার মাধ্যমে একটি গৃহ নির্মাণ করতে চান কিংবা অ্যাপার্টমেন্ট ক্রয় করতে চান তাহলে গৃহনির্মাণ ঋণ প্রকল্প নিতে পারবেন।

তাহলে আর দেরি না করে এখনি দেখে নিন গৃহনির্মাণ ঋণ প্রকল্পের ক্ষেত্রে কিরকম রিকোয়ারমেন্ট এবং ঋণসীমা প্রযোজ্য হবে।

ঋণ নেয়ার আদ্যোপান্ত

  • যে ব্যক্তি ঋণ নিতে চাইবে সে অবশ্যই বাংলাদেশী নাগরিক হতে হবে।
  • এই ঋণের সীমা হলো মোট প্রকল্পিত প্রায় ৬০% অর্থাৎ কোন একটি ভবন নির্মাণ করতে যদি ১ কোটি টাকার প্রয়োজন হয়; তাহলে ব্যাংক থেকে ৬০ লক্ষ টাকা নেয়া যাবে।
  • সুদের হার হল ১১% চক্রবৃদ্ধি হারে।
  • প্রতিমাসে কিস্তির মাধ্যমে ঋণ পরিশোধ করতে হবে।
  • একবছর প্রেস পিরিয়ডসহ সর্বোচ্চ ১৫ বছরের মধ্যে ঋণ পরিশোধ করতে হবে।
  • জামানত হিসেবে সংশ্লিষ্ট নির্মাণাধীন ভবনের রেজিস্টার্ড ব্যাংকের নিকট দায়বদ্ধ থাকবে।

পল্লী লোন প্রকল্প

মূলত বিত্তহীন এবং স্বল্পবিত্ত পুরুষ এবং মহিলার জন্য জনতা ব্যাংক পল্লী ঋণ প্রকল্প চালু করে রেখেছে। যার মাধ্যমে বিত্তহীন লোকজন পল্লী ঋণ প্রকল্প নিতে পারবে।

পল্লী উন্নয়ন প্রকল্প এর আদ্যোপান্ত

  • ঋণসীমা সর্বোচ্চ ৫ লক্ষ টাকা অব্দি নেয়া সম্ভব।
  • সুদের হার ৯%।
  • কিস্তির ধরন নির্বাচন করা হবে, যে ব্যক্তি লোন নিবে সেই ব্যক্তির বর্তমান আয়কৃত টাকার পরিমান পরিমাপের মাধ্যমে।
  • যে প্রকল্পের জন্য আপনি টাকা নিবেন সেই প্রকল্পের ধরন অনুযায়ী লোন নেয়ার সময়সীমা নির্ধারণ করা হবে।
  • জামানত হিসেবে তৃতীয় পক্ষ ব্যক্তির ৫০,০০০ টাকা দেয়ার ব্যক্তিগত গ্যারান্টি থাকতে হবে।

সকল পেশাজীবী জন্য জনতা ব্যাংক লোন

আপনি যদি সরকারি, আধাসরকারি, স্বায়ত্তশাসিত, প্রতিষ্ঠান ও বেসরকারি প্রতিষ্ঠান চাকরিজীবী হয়ে থাকেন তাহলে জনতা ব্যাংক থেকে লোন সেবা নিতে।

এই লোনের আদ্যোপান্ত

  • যে কোন ব্যক্তি যত টাকা মাসিক বেতন পাবে সেই বেতনের সর্বনিম্ন হিসাবে ১২ গুণ অব্দি টাকার পরিমানে লোন নিতে পারবে।
  • সুদের হার ৯%।
  • প্রতি মাসের কিস্তির মাধ্যমে ঋণ পরিশোধ করতে হবে।
  • লোন এর মেয়াদ হবে সর্বনিম্ন ২ বছর থেকে সর্বোচ্চ ৪ বছর পর্যন্ত।
  • এই ঋণের জামানত হিসেবে প্রতিষ্ঠানের প্রধানের প্রত্যয়নপত্র প্রয়োজন হবে।

শিক্ষা লোন কর্মসূচি

শিক্ষা ঋণ কর্মসূচী ওই ব্যক্তি নিতে পারবে যে ব্যক্তি বিভিন্ন সরকারি, আধাসরকারি, স্বায়ত্তশাসিত সংস্থা, ব্যাংক আর্থিক প্রতিষ্ঠান, মাল্টিন্যাশনাল কোম্পানীতে কর্মরত নির্বাহী কর্মকর্তা হিসেবে কমপক্ষে দুই বছর হয়েছে।

জনতা ব্যাংক শিক্ষা লোন সম্পর্কে আরও তথ্য

  • এই ঋণ নেয় কৃত ব্যক্তি কমপক্ষে ৫০ হাজার টাকা থেকে ১০ লক্ষ টাকা লোন নিতে পারবে।
  • সুদের হার ১১ শতাংশ অবধি বরাদ্দ থাকবে।
  • মাসিক এবং সেমিস্টার অনুযায়ী ঋণ পরিশোধ করতে হবে।
  • এই লোনের মেয়াদ থাকবে সর্বোচ্চ ৫ বছর।
  • যথাযথ স্ট্যাম্পে দস্তখত সরকারের ঋণ গ্রহীতার গ্যারান্টি দিতে হবে।

মূলত উপরে উল্লেখিত রিকোয়ারমেন্ট অনুযায়ী একজন ব্যক্তি জনতা ব্যাংক শিক্ষা লোন সেবা উপভোগ করতে পারবে।

গাভী পালন লোন

কোন ব্যক্তি যদি কৃষিকাজে সরাসরিভাবে নিয়োজিত থাকে এবং সেই ব্যক্তি যদি প্রকৃত কৃষক হিসেবে নির্বাচিত হয় তাহলে সেই ব্যক্তি গাভী পালন ঋণ উপভোগ করতে পারবে।

ঋণের বিস্তারিত

  • মূলত একটি গাভীর জন্য ৯০,০০০ টাকা বাবদ সর্বোচ্চ ৪ টি গাভী ক্রয় করতে পারবে। অর্থাৎ প্রত্যেকটি গাভীর জন্য ৯০,০০০ টাকা করে পাবে।
  • এক্ষেত্রে সুদের হার পড়বে ৯ শতাংশ।
  • কিস্তির ধরন হবে পাক্ষিক এবং জামানতের কোন দরকার নেই।

আশাকরি জনতা ব্যাংকের যে সমস্ত লোন সেবা রয়েছে সে সমস্ত লোন সেবা সম্পর্কে এবার আপনি পরিপূর্ণ জেনে নিতে পেরেছেন।

4 thoughts on “জনতা ব্যাংক লোন প্রকল্প সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য জানুন |”

  1. মোঃ শফিকুল ইসলাম

    আমি বাড়ি নিমানর জন্য লোল নিতে চাই |কি ভাবে নিব

    1. লোন নেয়ার জন্য আপনার পাশের জনতা ব্যাংক ব্রান্ঞ্চে যোগাযোগ করুন!

  2. মাসুদ রানা

    আমার বেসিক ১২১৩০৳ আমি সর্ব্বোচ্চ কতো লোন নিতে পারবো। দয়াকরে জানাবেন।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

close
Scroll to Top