জনতা ব্যাংক একাউন্ট খোলার নিয়ম এবং হেল্পলাইন নাম্বার |

আপনি যদি জনতা ব্যাংকের অধীনে একটি ব্যাংক অ্যাকাউন্ট তৈরি করতে চান; তাহলে এই আর্টিকেলের মাধ্যমে দেখতে পারবেন জনতা ব্যাংক একাউন্ট খোলার নিয়ম সম্পর্কে তথ্য।

জনতা ব্যাংক একাউন্ট খোলার নিয়ম জানার পরে আপনি যখন একটি জনতা ব্যাংক অ্যাকাউন্ট খুলবেন, তখন জনতা ব্যাংকের সাথে আপনার ব্যাংকিং কার্যক্রম সম্পাদন করতে পারবেন।

এছাড়াও জনতা ব্যাংক থেকে লোন নেয়া সহ অন্যান্য যাবতীয় বিষয়াদির সম্পাদন করার জন্য জনতা ব্যাংকের একটি অ্যাকাউন্ট তৈরি করা বাঞ্ছনীয় একটি বিষয়।

জনতা ব্যাংক একাউন্ট এর প্রকারভেদ

জনতা ব্যাংকের অধীনে আপনি চাইলে অনেকগুলো প্রকারভেদের মধ্য থেকে আপনার পছন্দের প্রকারভেদে একটি ব্যাংক অ্যাকাউন্ট তৈরি করতে পারবেন। আপনার বিভিন্ন কার্য সম্পাদনের জন্য বিভিন্ন রকমের একাউন্ট তৈরি করতে পারবেন।

জনতা ব্যাংকের অধীনে একটি অ্যাকাউন্ট তৈরি করার ক্ষেত্রে যে সমস্ত ক্যাটাগরি রয়েছে সেগুলো সম্পর্কে নিচে মেনশন করা হলোঃ

  1. অ-ব্যক্তিক হিসাব খোলা।
  2. ব্যক্তিক হিসাব খোলা।
  3. সরকারি/আধা সরকারি/ স্বায়ত্তশাসিত প্রতিষ্ঠানের হিসাব খোলা।
  4. স্থায়ী আমানত (এফ. ডি. আর) , সঞ্চয়ী স্কীম ও বিশেষ স্কীম হিসাব খোলা।

মূলত উপরে উল্লেখিত ক্যাটাগরির মধ্যে থেকে আপনি যে কোন একটি ক্যাটাগরিতে একটি জনতা ব্যাংক একাউন্ট তৈরি করতে পারবেন। এবং ব্যাংকিং কার্যক্রম সম্পাদন করতে পারবেন।

এবার আপনি যদি জনতা ব্যাংকের অধীনে আপনার ব্যবসায়িক কার্যক্রম সম্পাদনের জন্য একটি সেভিংস একাউন্ট তৈরী করতে চান; তাহলে নিম্নলিখিত ইনফর্মেশন এর দিকে নজর দিন।

জনতা ব্যাংক সেভিং একাউন্ট খোলার নিয়ম

জনতা ব্যাংকের সাথে আপনি যদি আপনার ব্যবসায়িক কার্যক্রম সম্পাদন করতে চান; তাহলে জনতা ব্যাংক সেভিং একাউন্ট খুলতে পারেন।

জনতা ব্যাংক সেভিং একাউন্ট খোলার ক্ষেত্রে আপনাকে যে সমস্ত ধাপ অতিক্রম করতে হবে সেগুলো নিম্নরূপ step-by-step মেনশন করা হলো।

অ্যাকাউন্ট খোলার ডকুমেন্টস

  • যে ব্যক্তি সেভিংস একাউন্ট খুলতে চাই সে ব্যক্তির জাতীয় পরিচয়পত্র, পাসপোর্ট কিংবা ড্রাইভিং লাইসেন্স এর ফটোকপি।
  • দুই কপি পাসপোর্ট সাইজের রঙ্গিন ছবি।
  • যে কোনো রকমের ব্যবসায়ীক আইডেন্টিফাই ডকুমেন্টস যেমন ই টিন সার্টিফিকেট বা অন্য কিছু।
  • একজন নমিনি নির্বাচন ওই নমিনি ব্যক্তির আইডি কার্ডের ফটোকপি এবং এক কপি রঙিন পাসপোর্ট সাইজের কপি ছবি।

যখনই আপনি উপরে উল্লেখিত ডকুমেন্টস সংগ্রহ করে নিবেন তখন আপনার নিকটস্থ কোনো জনতা ব্যাংকের ব্রাঞ্চে চলে যান; তাহলে তারা আপনাকে একটি একাউন্ট অপেনিং ফর্ম দিবে।

এছাড়াও আপনি চাইলে নিম্নলিখিত লিংক থেকে জনতা ব্যাংক একাউন্ট অপেনিং ফর্ম ডাউনলোড করে এটি ঘরে বসে ফিলাপ করে ব্যাংকে জমা দিতে পারেন।

একাউন্ট অপেনিং ফর্ম

 

মূলত উপরে উল্লেখিত ফরমগুলো থেকে সেভিংস একাউন্ট তৈরি করার যে ফর্ম রয়েছে সেই ফরম ডাউনলোড করে ফিলাপ করে তারপর প্রিন্ট আউট করুন।

যথাযথ তত্ত্বের সম্পন্ন হয়ে যখন এই ফর্ম ফিলাপ করে নিবেন তখন এটি আপনার নিকটস্থ ব্রাঞ্চে ডকুমেন্ট সহকারে পেশ করুন; তাহলে আপনার অ্যাকাউন্ট তৈরি কাজ সম্পাদন হয়ে যাবে।

তবে একাউন্ট তৈরীর কাজ সম্পাদন করতে হলে জনতা ব্যাংকের নির্ধারিত কিছু টাকা আপনার ব্যাংক একাউন্টে প্রথমত জমা রাখতে হবে। এই টাকার পরিমাণ ৫০০ টাকা থেকে ১,০০০ টাকা হতে পারে।

সেজন্য আপনি যদি সেভিংস একাউন্ট তৈরী করতে চান তাহলে ডকুমেন্টস নেয়ার সাথে সাথে কিছু টাকাও সাথে নিবেন, যাতে করে এই টাকা অ্যাকাউন্টে প্রবেশ করানোর মাধ্যমে একাউন্ট এক্টিভেট করতে পারেন।

জনতা ব্যাংক হেল্পলাইন নাম্বার

আপনি যদি জনতা ব্যাংক একাউন্ট খোলার সম্বন্ধে আরও বেশি বিস্তারিত তথ্য জেনে নিতে চান, তাহলে জনতা ব্যাংক হেল্পলাইন নাম্বারে যোগাযোগ করতে পারেন।

জনতা ব্যাংক হেল্পলাইন নাম্বার হিসেবে যে নাম্বারটি বর্তমানে বিদ্যমান রয়েছে সেই নাম্বার এর লিস্ট নিচে মেনশন করা হলো।

কাস্টমার কেয়ার নাম্বার
+88 02-9560000, 9566020, 9560039 9560027-30, 9556245-49, 9565041-43 9566028-29, 9566135-36, 9566141-43 9560042-44, 9558613
উপরে উল্লেখিত টেলিফোন নাম্বার গুলো থেকে যে কোন একটি নাম্বারে কল করলে আপনি জনতা ব্যাংকের হেল্পলাইন সেবা উপভোগ করতে পারবেন।

2 thoughts on “জনতা ব্যাংক একাউন্ট খোলার নিয়ম এবং হেল্পলাইন নাম্বার |”

  1. Hamidul Islam

    আমি আমার জনতা ব্যাংকের একাউন্ট নাম্বার ভুলে গেছি।তাই আমি কোনো প্রকার লেনদেন করতে পারছিনা কিন্তু এখন উপায় কি?

    1. ব্যাংকে গিয়ে এবিষয়ে কর্মকর্তাদের অবগত করেন! তাহলে সমাধান পাবেন!

Leave a Comment

Your email address will not be published.

Scroll to Top