ইসলামী ব্যাংক একাউন্ট খোলার নিয়ম এবং সুবিধা |

Advertisements

আপনি যদি ইসলামী ব্যাংকের অধীনে একটি অ্যাকাউন্ট খুলতে চান, তাহলে এই আর্টিকেলের মাধ্যমে দেখেনিম ইসলামী ব্যাংক একাউন্ট খোলার নিয়ম সম্পর্কে।

আজকের এই আর্টিকেলের সম্পূর্ণ আলোচনা করা হবে ইসলামী ব্যাংকের যে সমস্ত ভিন্ন ভিন্ন সেক্টর রয়েছে সেই সেক্টরে ইসলামী ব্যাংক একাউন্ট খোলার নিয়ম সম্পর্কে।

এছাড়াও বো ইসলামী ব্যাংক লিমিটেডনাস টিপস হিসেবে থাকছে অনলাইনে ঘরে বসে ইসলামী ব্যাংক একাউন্ট খোলার নিয়ম সম্পর্কে সর্বশেষ তথ্য।

ইসলামী ব্যাংক একাউন্ট এর প্রকারভেদ

ইসলামী ব্যাংকের অধীনে আপনি যদি একটি অ্যাকাউন্ট তৈরি করতে চান, তাহলে আপনি চাইলে ভিন্ন ভিন্ন তিন রকমের একাউন্ট তৈরি করতে পারবেন।

সেগুলো হচ্ছে.।

  1. কারেন্ট অ্যাকাউন্ট।
  2. সেভিংস একাউন্ট।
  3. স্টুডেন্ট একাউন্ট।

উপরে উল্লেখিত তিনটি ভিন্ন ভিন্ন ব্যাংক একাউন্টের ক্যাটাগরিতে তিনজন ভিন্ন ভিন্ন মানুষের জন্য প্রযোজ্য এবং কিভাবে আপনি এই অ্যাকাউন্ট খুলবেন সম্পর্কে এবার জেনে নিন।

কারেন্ট ইসলামী ব্যাংক একাউন্ট

মূলত কারেন্ট ইসলামী ব্যাংক একাউন্ট ব্যবসায়ীদের জন্য খোলার ক্ষেত্রে প্রযোজ্য। এই একাউন্টে কোন রকমের ইন্টারেস্ট প্রযোজ্য হবে না।

কারেন্ট ইসলামী ব্যাংক একাউন্ট ব্যবহারকারীরা চাইলে প্রতিদিন আনলিমিটেড ট্রানজেকশন করতে পারবে এবং লেনদেন করতে পারবে।

মূলত কারেন্ট ইসলামী ব্যাংক একাউন্ট যে কোন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের জন্য কিংবা আপনার ব্যবসায়িক কার্যক্রম পরিচালনার জন্য ইসলামী ব্যাংকের অধীনে খোলা যাবে।

এবার তাহলে দেখে নিন কারেন্ট ইসলামী ব্যাংক একাউন্ট তৈরি করার ক্ষেত্রে যে সমস্ত রিকোয়ারমেন্ট এর প্রয়োজন হবে সেগুলো সম্পর্কে; অর্থাৎ এই একাউন্ট খুলতে কি কি লাগবে এই সম্পর্কে।

একাউন্ট তৈরীর ডকুমেন্টসঃ

  • গ্রাহকের ভোটার আইডি কার্ড, ড্রাইভিং লাইসেন্স পাসপোর্ট অথবা জন্ম নিবন্ধন এর ফটোকপি।
  • গ্রাহকের ২ কপি সদ্য তোলা রঙ্গিন পাসপোর্ট সাইজের ছবি।
  • নমিনির নির্বাচনকৃত ব্যক্তির একটি জাতীয় পরিচয় পত্রের ফটোকপি এবং এক কপি রঙিন ছবি।
  • আপনার ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠানের সার্টিফিকেট বা ই টিন সার্টিফিকেট প্রযোজ্য হবে।

ডকুমেন্টস যদি সঠিক থাকে তাহলে আপনাকে একটি ফরম ফিলাপ করতে হবে এই ফর্মে ব্যাংক থেকে কালেক্ট করতে পারেন কিংবা তাদের অনলাইন শাখা থেকে কালেক্ট করতে পারেন।

আপনি চাইলে ডাইরেক্টলি নিম্নলিখিত লিঙ্ক থেকে একাউন্ট অপেনিং ফর্ম ডাউনলোড করতে পারেন এবং এটি প্রিন্ট আউট করার মাধ্যমে ফিলাপ করে নিকটস্থ ব্যাংকে জমা দিতে পারেন।

ফরম ডাউনলোড করুন

 

মূলত উপরে উল্লেখিত ফর্ম ডাউনলোড করার সে সেটি যথাযথভাবে ফিলাপ করে নেয়ার পরে প্রিন্ট আউট করে ব্যাংকে জমা দিলে আপনার অ্যাকাউন্ট তৈরি কাজ সম্পাদন হয়ে যাবে।

ইসলামী ব্যাংক সেভিংস একাউন্ট তৈরীর নিয়ম

 

তবে আপনি যদি ব্যবসায়িক একাউন্ট তৈরী করেন কিংবা ইসলামী ব্যাংক সেভিং একাউন্ট তৈরি করার ইচ্ছা করেন, তাহলে বিভিন্ন রকমের ডকুমেন্টস প্রদান করতে হবে অর্থাৎ আপনার অ্যাকাউন্টের প্রকারভেদে ডকুমেন্ট প্রদান করতে হবে।

ব্যবসায়িক একাউন্ট খোলার জন্য যা প্রযোজ্য হবে।

প্রয়োজনীয় ডকুমেন্টসঃ

  • গ্রাহকের ভোটার আইডি কার্ড, ড্রাইভিং লাইসেন্স পাসপোর্ট অথবা জন্ম নিবন্ধন এর ফটোকপি।
  • গ্রাহকের ২ কপি সদ্য তোলা রঙ্গিন পাসপোর্ট সাইজের ছবি।
  • নমিনির নির্বাচনকৃত ব্যক্তির একটি জাতীয় পরিচয় পত্রের ফটোকপি এবং এক কপি রঙিন ছবি।
  • আপনার ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠানের সার্টিফিকেট বা ই টিন সার্টিফিকেট প্রযোজ্য হবে।

এছাড়াও যা প্রয়োজন হবেঃ

  • আপনার প্রতিষ্ঠান যদি ট্রাস্ট হয় তাহলে ট্রাস্ট প্রতিষ্ঠান দলিল বা এটি প্রমাণ এর কাগজ।
  • প্রতিষ্ঠান স্কুল-মাদ্রাসা বিশ্ববিদ্যালয় হলে ম্যানেজিং কমিটির রেজুলেশন থাকতে হবে।
  • প্রতিষ্ঠান লিমিটেড কোম্পানি হলে মেমোরেন্ডাম এন্ড আর্টিকেলস অব এসোসিয়েশন এর সত্যায়িত অনুলিপি।

উপরে মাত্র কয়েকটি ব্যবসায়িক একাউন্ট এর প্রকারভেদ বর্ণনা করা হলো এবার আপনার প্রয়োজন বেঁধে যে সমস্ত ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠানের জন্য অ্যাকাউন্ট খুলতে চান সেই সমস্ত প্রতিষ্ঠান সঠিক দলিল পেশ করতে হবে।

যখন এই সমস্ত ডকুমেন্ট কালেক্ট করা সম্পন্ন হয়ে যাবে তখন আপনি ইসলামী ব্যাংক সেভিং একাউন্ট তৈরি করার যে একাউন্ট অপেনিং ফর্ম রয়েছে সেটি কালেক্ট করে নিতে পারেন।

ডাউনলোড করুন

 

উপরে উল্লেখিত লিংক থেকে ফর্মটি ডাউনলোড করে নিলে তার পরে এটি ফিলাপ করে প্রিন্ট আউট করুন এবং সমস্ত ডকুমেন্ট এর সমন্বয় এই ফর্ম ব্যাংকে জমা দিন।

মূলত উপরে উল্লেখিত ডকুমেন্টস নিয়ে আপনি যদি ইসলামী ব্যাংকে উপস্থিত হন, তাহলে খুব সহজে একটি অ্যাকাউন্ট তৈরি করে নিতে পারবেন।

ইসলামী ব্যাংক স্টুডেন্ট একাউন্ট

আপনি যদি একজন ছাত্র হয়ে থাকেন তাহলে আপনার ব্যাংকিং কার্যক্রম পরিচালনা করার জন্য ইসলামী ব্যাংক স্টুডেন্ট একাউন্ট তৈরি করতে পারেন।

মূলত এই ব্যাংকিং ব্যবস্থা তৈরি করা হয়েছে ছাত্র-ছাত্রীদের উপকারে ব্যাংকে নিয়োজিত করার জন্য। এছাড়াও ইসলামী ব্যাংক স্টুডেন্ট একাউন্ট এর অনেক সুবিধা রয়েছে।

ইসলামী ব্যাংক স্টুডেন্ট একাউন্ট এর সুবিধা

আপনি যদি ইসলামী ব্যাংকের অধীনে একটি স্টুডেন্ট একাউন্ট তৈরি করেন তাহলে যে সমস্ত সুযোগ সুবিধা উপভোগ করতে পারবেন, সেগুলো নিচে তুলে ধরা হলো।

  1. এটিএম চার্জ দিতে হবে না। অর্থাৎ বাৎসরিক এটিএম বুথ থেকে টাকা তোলার ক্ষেত্রে কোন চার্জ দিতে হবে না।
  2. ইন্টারনেট ব্যাংকিং একাউন্ট তৈরি করার সুবিধা রয়েছে। মাত্র ১০০ টাকা দিয়ে একাউন্ট তৈরি করা যাবে।
  3. যে কোন শাখায় টাকা ট্রান্সফারের সুবিধা।
  4. একদম স্বল্পমূল্যে ব্যাংক একাউন্ট তৈরী করার অফুরন্ত সুবিধা। ইত্যাদি।

মূলত একটি স্টুডেন্ট একাউন্ট তৈরি করার ক্ষেত্রে উপরে উল্লেখিত সুযোগ সুবিধা উপভোগ করতে পারবেন।

তাহলে এবার দেখে নিন একটি স্টুডেন্ট একাউন্ট তৈরি করার ক্ষেত্রে যে সমস্ত ডকুমেন্টস এর প্রয়োজন হবে সেগুলো সম্পর্কে বিস্তারিত।

স্টুডেন্ট অ্যাকাউন্ট তৈরি ডকুমেন্টঃ

  • গ্রাহকের যদি এনআইডি কার্ড থাকে তাহলে এনআইডি কার্ডের ফটোকপি। না থাকলে জন্মনিবন্ধনের ফটোকপি।
  • ২ কপি সদ্য তোলা পাসপোর্ট সাইজের রঙ্গিন ছবি।
  • শিক্ষা প্রতিষ্ঠান প্রত্যয়ন পত্র কিংবা সর্বশেষ বেতন এর একটি স্লিপ।
  • যাকে নমিনি হিসেবে নির্বাচন করা হবে তার জন্ম নিবন্ধন কার্ডের ফটোকপি এবং এক কপি রঙিন পাসপোর্ট সাইজের ছবি।
  • পিতা-মাতা অবশ্যই বাংলাদেশের নাগরিক হতে হবে।

মূলত উপরে উল্লেখিত ডকুমেন্টের সহকারে আপনি যদি ইসলামী ব্যাংকের যে কোন একটি শাখায় উপস্থিত হন তাহলে একজন কর্মকর্তা আপনাকে একাউন্ট অপেনিং ফর্ম দিবে।

এবার আপনি যদি ওই একাউন্ট অপেনিং ফর্ম যথাযথভাবে ফিলাপ করে নেন তাহলে আপনার অ্যাকাউন্ট কয়েকদিনের মধ্যে সচল হয়ে যাবে। এবং আপনি এই একাউন্টের মাধ্যমে ব্যাংকিং কার্যক্রম পরিচালনা করতে পারবেন।

আশা করি ইসলামী ব্যাংকের অধীনে যে ভিন্ন তিনটি অ্যাকাউন্ট তৈরি করার ব্যবস্থা রয়েছে সেগুলো সম্পর্কে আপনি বিস্তারিত জেনে নিতে পেরেছেন।

অনলাইনে ইসলামী ব্যাংক একাউন্ট তৈরি

আপনি যদি চান তাহলে ঘরে বসে ইসলামী ব্যাংকের অধীনে একটি ব্যাংক অ্যাকাউন্ট তৈরি করে নিতে পারবেন। এতে করে কোন রকমের ভোগান্তি পোহাতে হবে না।

অনলাইনের মাধ্যমে ইসলামী ব্যাংক একাউন্ট তৈরি করার জন্য প্রথমত আপনাকে ইসলামী ব্যাংকের অধীনে তৈরিকৃত একটি অ্যাপস ডাউনলোড করে নিতে হবে।

এন্ড্রয়েড ফোনের জন্য তৈরিকৃত অ্যাপস টি নিম্নলিখিত লিংক থেকে ডাউনলোড করে নিন।

ডাউনলোড করুন

 

উপরে উল্লেখিত লিঙ্ক থেকে অ্যাপসটি ডাউনলোড করা সম্পূর্ণ হয়ে গেলে এই অ্যাপসটি ড্যাশবোর্ডে আপনি চলে যেতে পারবেন, সেখান থেকে রেজিস্ট্রেশন কার্য সম্পাদন করা যায়।

মূলত তার পরেই আপনার জাতীয় পরিচয় পত্রের ফটোকপি এবং আপনার ছবি তোলার মাধ্যমে step-by-step ব্যাংক একাউন্ট তৈরী করতে পারবেন।

এই সম্পর্কে পরিপূর্ণ এবং বিস্তারিত তথ্য জেনে নেয়ার জন্য নিম্নলিখিত ভিডিওটি দেখে নিন এবং অনলাইনে ইসলামী ব্যাংক একাউন্ট তৈরীর কাজ সম্পাদন করুন।

উপরে উল্লেখিত ভিডিও এর মাধ্যমে আপনি খুব সহজেই ঘরে বসে সেলফিন অ্যাপ এর মাধ্যমে ইসলামী ব্যাংকের অ্যাকাউন্ট তৈরি করে নিতে পারবেন।

আশাকরি করে বসে কিভাবে ইসলামী ব্যাংকের অধীনে একটি অ্যাকাউন্ট তৈরি করা যায় সে সম্পর্কে বিস্তারিত জেনে নিতে পেরেছেন।

11 thoughts on “ইসলামী ব্যাংক একাউন্ট খোলার নিয়ম এবং সুবিধা |”

  1. Mohammad Abdullah Al Mamun

    এনআইডি ছাড়া কি জন্ম নিবন্ধন দিয়ে অনলাইনে একাউন্ট খুলা যাবে না?

  2. Saidul Islam Faisal

    স্টুডেন্ট একাউন্টে ম্যাক্সিমাম কত টাকা জমা রাখতে পারবে?
    একজন স্টুডেন্ট যদি মাসে ৫-৬ লাখ টাকা ইনকাম করে তাহলে সে কি পুরো টাকা ব্যাংকে জমা,রাখতে পারবে?

    1. এত টাকা ইনকাম থাকলে, সেজন্য আপনি সেভিংস একাউন্ট তৈরী করে পুরো টাকা রাখার মতো সুযোগ পেতে পারেন!

  3. Tanvir Hasan

    ১) সর্বোচ্চ কত টাকা রাখা যাবে?
    ২) স্টুডেন্ট একাউন্ট এর মেয়াদ কত বছর থাকবে?

  4. স্বাধীন

    ইস্টুডেন্ট একাউন্ট খুলতে বয়স বিভাজন আছে কি না?

  5. কতবয়েসেরstudentএউএকাউন্টখুলতেপারবে.আরকোনক্লাসেপড়ারউপয়োগিহতেহবে

    1. অনার্স এ ভর্তি হওয়ার আগ অবধী স্টুডেন্ট একাউন্ট খোলা যাবে।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

close
Scroll to Top