অগ্রণী ব্যাংক অ্যাকাউন্ট তৈরি করার নিয়ম , রাউটিং নাম্বার এবং ব্রাঞ্চ

Advertisements

অগ্রণী ব্যাংক একাউন্ট খোলার নিয়ম, স্টুডেন্ট ব্যাংক একাউন্ট খোলার নিয়ম সহ অগ্রণী ব্যাংক রিলেটেড আরো যে সমস্ত বিষয় রয়েছে সেগুলো সম্পর্কে এই পোস্টটিতে আলোচনা করা হবে।

আপনি যদি অগ্রণী ব্যাংকের অধীনে একটি অ্যাকাউন্ট তৈরি করতে চান, তাহলে যে সমস্ত স্টেপ গুলো ফলো করতে হবে এবং যে সমস্ত ডকুমেন্টস প্রয়োজন হবে সেগুলো সম্পর্কে জানতে পারবেন।

অগ্রণী ব্যাংক একাউন্ট খোলার নিয়ম

আপনি যদি অগ্রণী ব্যাংক একাউন্ট তৈরী করতে চান, তাহলে দুই রকমের ব্যাংক একাউন্ট আপনি তাদের কাছ থেকে তৈরি করার সুযোগ সুবিধা ভোগ করতে পারেন।

এ সমস্ত ব্যাংক একাউন্ট গুলোর মধ্যে থেকে একটি হলো স্টুডেন্ট একাউন্ট এবং অন্যটি হলো সেভিংস একাউন্ট।

এবার আপনি যদি এই দুই ধরনের অ্যাকাউন্ট এর মধ্যে থেকে একটি অ্যাকাউন্ট তৈরি করতে চান, তাহলে বিভিন্ন রকমের ইম্পরট্যান্ট ডকুমেন্টস এর প্রয়োজন হবে।

এই সমস্ত ইম্পরট্যান্ট ডকুমেন্টস যখন তাদেরকে প্রোভাইড করবেন, তখন কিছু স্টেপ করার মাধ্যমে সহজেই অগ্রণী ব্যাংক একাউন্ট তৈরী করে নিতে পারবেন।

অগ্রণী ব্যাংক স্টুডেন্ট একাউন্ট

অগ্রণী ব্যাংক স্টুডেন্ট একাউন্ট তৈরি করার মাধ্যমে আপনি যে সমস্ত সুযোগ সুবিধা উপভোগ করতে পারবেন, সেই সমস্ত সুযোগ সুবিধা গুলোর মধ্যে থেকে কয়েকটি নিচে মেনশন করা হলো।

কেউ যদি পাঁচ বছর মেয়াদি স্টুডেন্ট অ্যাকাউন্ট তৈরি করে তাহলে সেই স্টুডেন্ট একাউন্টে ওই ব্যক্তি প্রতি মাসে 500,1000,2000,3000,4000,5000,6000,7000,8000,9000,10000 সমপরিমাণ টাকা জমা রাখতে পারবে।

এবং 10 বছর মেয়াদী স্টুডেন্ট একাউন্ট এ যে কেউ 500 ,1000,2000,3000,4000,5000,6000,7000,8000,9000,10000 সমপরিমাণ টাকা জমা রাখতে পারবে।

এবং আপনার স্কুলে প্রদানকৃত উপবৃত্তির টাকা কিংবা বৃত্তির টাকা আপনি চাইলে স্টুডেন্ট একাউন্ট এর মাধ্যমে আপনার কাছে নিয়ে আসতে পারবেন।

এছাড়াও স্টুডেন্ট একাউন্ট এর জন্য বরাদ্দকৃত ইন্টারেস্ট রেট হলো 7.00%. তবে স্টুডেন্ট একাউন্ট তৈরি করার ক্ষেত্রে আপনি এই ইন্টারেস্ট রেট পরিবর্তন করতে পারবেন।

Agrani Bank স্টুডেন্ট একাউন্ট তৈরি করার জন্য যে সমস্ত ডকুমেন্টস প্রয়োজন হবে সে সমস্ত ডকুমেন্টস সম্পর্কে নিচে আলোচনা করা হলোঃ

  1. স্টুডেন্ট আইডি কার্ড।
  2. বার্থ সার্টিফিকেট পাসপোর্ট ন্যাশনাল আইডি কার্ড এগুলোর মধ্যে থেকে যে কোন একটি ডকুমেন্টস।
  3. যে অ্যাকাউন্ট তৈরি করতে চায় তার দুই কপি পাসপোর্ট সাইজ ছবি।
  4. নমিনি সনাক্তকৃত ব্যক্তির 1 কপি পাসপোর্ট সাইজ ছবি।

উপরে উল্লেখিত ডকুমেন্টগুলো সংগ্রহ করা সম্পন্ন হয়ে গেলে, এবার আপনার আশেপাশে থাকা অগ্রণী ব্যাংকের যে কোন একটি শাখায় আপনি উপস্থিত হতে পারেন।

এবং উপস্থিত হওয়ার পরে তারা আপনাকে একটি ফ্রম দিবে যে ফরমটি ফিলাপ করার পরেই আপনার ব্যাংক অ্যাকাউন্ট তৈরি কাজ সম্পন্ন হয়ে যাবে।

তবে এই সমস্ত কাজ গুলো আপনি যদি ঘরে বসেই করে ফেলতে চান, তাহলে নিম্নলিখিত লিংকে ভিজিট করে যে রেজিস্ট্রেশন ফরম রয়েছে সেগুলো ডাউনলোড করে নিন।

Agrani Bank Account Opening Form

উল্লেখিত মেনশন কৃত লিঙ্কে রেজিস্ট্রেশন ফরম এর মধ্যে থেকে আপনার স্টুডেন্ট একাউন্ট এর জন্য যে ফ্রম বরাদ্দ রয়েছে সেটি ডাউনলোড করে ফিলাপ করে নিন।

এবং তারপরে আপনি এই ফরমটি প্রিন্ট আউট করে আপনার নির্দিষ্ট ব্যাংক প্রতিনিধির কাছে জমা দিন, তাহলেই আপনার একাউন্ট তৈরীর কাজ সম্পাদন হয়ে যাবে।

সেভিংস একাউন্ট তৈরি করার নিয়ম

Agrani Bank অধীনে থাকা সেভিংস একাউন্ট তৈরি করার মাধ্যমে আপনি যে সমস্ত সুযোগ সুবিধা উপভোগ করতে পারবেন সেগুলো সম্পর্কে নিচে আলোচনা করা হলো।

সেভিংস একাউন্ট ইন্টারেস্ট রেট হলো 3.50 শতাংশ; এছাড়াও আপনি চাইলে নির্দিষ্ট পরিমাণ টাকা জমা রাখতে পারবেন এবং যেকোন সময় টাকা উত্তোলন করতে পারবেন।

একটি সেভিংস একাউন্ট আপনি চাইলে একজনের নামে তৈরি করতে পারবেন অথবা দুইজনের নামে ও তৈরি করতে পারবেন।

এবার দেখে নিন সেভিংস একাউন্ট তৈরি করার জন্য যে সমস্ত ডকুমেন্টস প্রয়োজন সেই সমস্ত ডকুমেন্টস গুলো সম্পর্কে।

  1. যে ব্যক্তি একাউন্ট তৈরি করতে চায় তার নাম, একই সাথে ওই ব্যক্তির বাবা মায়ের নাম সহ ডকুমেন্টস।
  2. ব্যক্তির অবস্থানকৃত পার্মানেন্ট এড্রেস এর সত্যতা যাচাই।
  3. জন্ম নিবন্ধন কার্ড, জাতীয় পরিচয় পত্র, ড্রাইভিং লাইসেন্স এর মধ্যে দেখে যেকোনো একটি ডকুমেন্ট
  4. এছাড়াও টিন সার্টিফিকেট যদি থেকে থাকে তাহলে টিন সার্টিফিকেট প্রদান করলে আপনার কাজটি আরও সহজ হয়ে যায়।
  5. যে একাউন্ট তৈরী করবে তার দুই কপি পাসপোর্ট সাইজ ছবি এবং নমিনির জন্য 1 কপি পাসপোর্ট সাইজ ছবি।

এ সমস্ত ডকুমেন্টস গুলো সাথে নিয়ে অগ্রণী ব্যাংকের যে কোন একটি শাখায় নিয়ে উপস্থিত হলে তারা একটি রেজিস্ট্রেশন ফরম দিবে। যার মাধ্যমে আপনি একাউন্ট তৈরী করতে পারবেন।

মূলত Agrani Bank অধীনে তৈরিকৃত স্টুডেন্ট একাউন্ট কিংবা সেভিংস একাউন্ট এর মধ্যে থেকে, আমার মতে “স্টুডেন্ট একাউন্ট” সবচেয়ে বেশি কার্যকরী।

এছাড়াও বিভিন্ন সুযোগ-সুবিধা স্টুডেন্ট একাউন্ট থেকে পাওয়া সম্ভব। তবে ব্যবসায়িক কার্যক্রম সম্পাদনের জন্য সেভিংস একাউন্ট আপনার জন্য কার্যকরী হতে পারে।

অগ্রণী ব্যাংক রাউটিং নাম্বার

Agrani Bank সাথে আপনার লেনদেন কার্যক্রম সম্পাদনের জন্য অগ্রণী ব্যাংক রাউটিং নাম্বার প্রয়োজন হতে পারে।

এই সমস্ত রাউটিং নাম্বার এক একটি শাখা কিংবা ব্রাঞ্চের জন্য একেক রকমের হয়ে থাকে। যার কারণে স্পেসিফিকভাবে নির্দিষ্ট কোন রাউটিং নাম্বার মেনশন করা সম্ভব নয়।

তবে আপনি যদি অগ্রণী ব্যাংকের যে সমস্ত রাউটিং নাম্বার রয়েছে সমস্ত রাউটিং নাম্বার একসাথে কালেক্ট করতে চান, তাহলে একটি পিডিএফ ফাইল ডাউনলোড করতে পারেন।

এই পিডিএফ ফাইল এর মধ্যে অগ্রণী ব্যাংক রাউটিং নাম্বার সম্পর্কে সমস্ত তথ্য প্রদান করা হয়েছে। যা একজন গ্রাহক হিসেবে জানা প্রয়োজন।

Routing Number List

উপরে উল্লেখিত ফাইলটিতে 80 পৃষ্ঠা রয়েছে, যে সমস্ত পৃষ্ঠাগুলোতে আপনার প্রয়োজনীয় রাউটিং নাম্বার মেনশন করা হয়েছে।

অগ্রণী ব্যাংক ডিপিএস

মাসিক সঞ্চয় প্রকল্প বা ভিপিএস অগ্রণী ব্যাংকে সাথে আপনি সম্পাদন করতে পারবেন। পাঁচ বছরের জন্য তৈরি করা একটি স্টুডেন্ট একাউন্ট এর জন্য প্রতি মাসে 500,1000,2000,3000,4000,5000,6000,7000,8000,9000,10000 সমপরিমাণ টাকা জমা রাখতে পারবেন।

এবং 10 বছরের জন্য তৈরিকৃত স্টুডেন্ট একাউন্ট এর জন্য আপনি সমপরিমাণ টাকা প্রতি মাসে ব্যাংকে জমা রাখতে পারবেন।

মূলত নির্দিষ্ট মেয়াদের জন্য রাখা টাকাগুলো আপনি নির্দিষ্ট সময় পর মুনাফা এর সাথে ফেরত পাবেন; আর এই ব্যাংকের অধীনে তৈরিকৃত নির্দিষ্ট ডিপিএস পদ্ধতি অনেক ভালো একটি পদ্ধতি।

অগ্রণী ব্যাংক ব্রাঞ্চ লোকেশন

অগ্রণী ব্যাংকের যে সমস্ত ব্রাঞ্চ আপনার আশেপাশে অবস্থান করছে, তাতে উপস্থিত হয়ে ব্যাংক রিলেটেড সমস্যা সমাধান নেয়া সম্ভব। সেগুলোর লোকেশন জানতে হলে নিচের লিংকে ভিজিট করুন।

Branches location

উল্লেখিত লিংকে ভিজিট করার পরে আপনার সামনে নতুন একটি পেজ ওপেন হবে। যেখান থেকে অগ্রণী ব্যাংকের যে সমস্ত ব্রাঞ্চ লোকেশন রয়েছে সেগুলোর সন্ধান পেয়ে যাবেন।

এই সমস্ত কাজ আপনার নির্দিষ্ট জেলা এবং বিভাগ সিলেক্ট করার মাধ্যমে সম্পাদন করতে হবে। জেলা এবং বিভাগ সিলেট করা হয়ে গেলে ঐ লোকেশানে থাকা ব্রাঞ্চ লোকেশন দেখা সম্ভব।

অগ্রণী ব্যাংক অ্যাকাউন্ট তৈরি করার নিয়ম রাউটিং নাম্বার এবং ব্রাঞ্চ
অগ্রণী ব্যাংক অ্যাকাউন্ট তৈরি করার নিয়ম রাউটিং নাম্বার এবং ব্রাঞ্চ

আশাকরি অগ্রণী ব্যাংক একাউন্ট তৈরি করার নিয়ম এবং এই রিলেটেড আরো যে সমস্ত বিষয় ছিল সেগুলো সম্পর্কে আপনি জেনে নিতে পেরেছেন।

8 thoughts on “অগ্রণী ব্যাংক অ্যাকাউন্ট তৈরি করার নিয়ম , রাউটিং নাম্বার এবং ব্রাঞ্চ”

  1. আমি অগ্রণী ব্যাংকের অ্যাকাউন্ট খুলতে চাই অনলাইন

    1. এখানে বর্নিত নিয়ম অনুসারে ট্রাই করে দেখুন। এছাড়া আরো খুটিনাটি বিস্তারিত জানতে ব্যাংক সংশ্লিষ্টদের সাথে যোগাযোগ করুন অথবা হেল্লপলাইনে যোগাযোগ করুন।

  2. Md. Moynul Haque

    আমি অনলাইলে অগ্রণী ব্যাংকে সেভিং একাউন্ট খুলতে চাই।

    1. এখানে থাকা নিয়মকানুনের দিকে নজর দিন! প্রয়োজনে হেল্পলাইন নাম্বারে যোগাযোগ করুন!

  3. Rakib molla

    অগ্রণী ব্যাংকে জমা কৃত টাকা কি কোন কারণে কেটে নেওয়া হয়?

    1. খুব সম্ভবত কেটে নেয়ার কোন কারন নেই..। তাও হিডেন চার্জ যদি থাকে তাহলে কেটে নিতে পারে।

  4. Mohammad Shahjalal

    আমি মোঃ শাহজালাল,কুমিল্লা জেলার, লাকসাম,খিলা বাজার অগ্রনি ব্যাংক শাখায় একটি ওনলাইন একাউন্ট খুলতে ছাই

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

close
Scroll to Top